সাস্টেনিবিলিটি

কম্পানি হিসেবে আমাদের পরিচয় বহন করার এবং আমাদের কর্ম পদ্ধতির এক অভিন্ন অঙ্গ হল সাস্টেনিবিলিটি বা স্থিতিশীলতা। শুধুমাত্র পণ্য উৎপাদন করাই নয়, তার পাশাপাশি পরিবেশ, সামাজিক দায়বদ্ধতা এবং অনুশাসনের প্রতি আমাদের দৃষ্টিকোণও সার্বজনিক ভাবে স্বীকৃত হয়েছে। শক্তি ও সম্পদের সংরক্ষণ করার প্রতি ফিনোলেক্স সর্বাধিক মনোনিবেশ করে। শক্তি সঞ্চয় হোক কিংবা অপ্টিমাইজেশন, আমাদের কাজ হল সামগ্রিক স্থিতিশীলতার লক্ষ্য পূরণের উদ্দেশ্যে এগিয়ে যাওয়া। অতীতে বিভিন্ন পুরস্কারের মাধ্যমে, আমাদের এই প্রচেষ্টাকে রাজ্য এবং জাতীয় স্তরে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক স্বীকৃতি

বেস্ট সেফ্‌টি প্র্যাক্টিসেস অ্যাওয়ার্ড ২০১৫ – জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ।পরিষদ

গ্রীন ম্যানুফ্যাকচারিং এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০১৪: মেরিট সার্টিফিকেট, ফ্রস্ট থেকে বিশ্বাসী বিভাগ & সুলিভান

বছরের সেরা পানির কোম্পানি জাতীয় সিএসআর নেতৃত্ব কংগ্রেসের দ্বারা & পুরস্কার

ব্লুয়েডার্ট গ্লোবাল সিএসআর এক্সেলেন্স অ্যান্ড লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড জন্য “সমর্থন & শিক্ষা মানের উন্নতি”

পরিবেশ

ফিনোলেক্স, পরিবেশগত ভারসাম্যকে সম্মান পূর্বক সুরক্ষা প্রদান করে ও তাকে বজায় রাখার চেষ্টা করে। আমাদের সমস্ত কার্যকলাপের এক অবিচ্ছেদ অঙ্গ হল পরিবেশের সুরক্ষা। একটি পরিবেশ ব্যবস্থাপনা কক্ষ, সমস্ত সাইটের ওপর নিয়মিতভাবে পুঙ্খানুপুঙ্খ নজর রাখার মাধ্যমে, পরিবেশগত প্যারামিটারগুলিকে নিরীক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণ করে, যা ম্যানেজমেন্ট দ্বারা পর্যালোচনা করা হয়। আমাদের রত্নাগিরি প্লান্ট’টি জার্মানির TUV দ্বারা ISO 14001:2015 সার্টিফাইড, এবং আমাদের অন্যান্য প্লান্টগুলিও সেই একই নির্দেশাবলী মেনে চলে। আমাদের পলিমার প্রডাক্টগুলি ধাতুর চাহিদা কম করে, পৃষ্ঠতল ক্ষয় হওয়া অবরোধ করে এবং একটি স্বচ্ছ, ক্ষয় মুক্ত, শক্তি সাশ্রয়ী ও দীর্ঘস্থায়ী জল পরিবহন প্রণালী প্রদান করে।

দূষণ নিয়ন্ত্রণ

আমাদের পিভিসি রেজিন প্লান্ট’টি, কম্পিউটার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত একটি আবদ্ধ প্রণালীতে কাজ করে। কোনপ্রকার অব্যবস্থিত কিংবা অনিয়ন্ত্রিত উৎসর্জন পরিবেশে নির্গত হয় না। স্ট্যাক গ্যাস এবং চিমনির ভেন্টগুলি নিয়মিতভাবে বিভিন্ন স্বাধীন সংস্থা দ্বারা মনিটর করা হয়। পাওয়ার প্লান্ট থেকে নিঃসৃত ফ্লু গ্যাস, স্ট্যাক ও তার সাথে জলীয় বর্জ্য পদার্থগুলি, অনলাইন মনিটরিং সিস্টেমের মাধ্যমে সরাসরি রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের সার্ভার-এর সাথে যুক্ত। জাতীয় মানদণ্ড অনুযায়ী পরিবেশগত বায়ুর গুনমান নিরীক্ষণ করা হয়। সর্বশ্রেষ্ঠ উপায় অবলম্বন করে, সারা বছর ধরে নিরন্তরভাবে বিভিন্ন স্থান থেকে বায়ুর নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

পানি ফসল

বাঁধ

আমাদের রত্নাগিরি প্লান্ট থেকে ৭ কিলমিটার দূরত্বে অবস্থিত ‘থরলি’ নদীতে ফিনোলেক্স একটি বাঁধ নির্মাণ করেছে। এর ফলস্বরূপ, বয়ে যাওয়া বর্ষার জল সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়েছে, যা অন্যথায় সমুদ্রে গিয়ে পড়তো। এটি তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় ভূগর্ভস্থ জলের স্তর বৃদ্ধি করতে সাহায্য করেছে।

বৃষ্টির ফসল

আমাদের রত্নাগিরিতে স্থিত প্লান্টে, জিওমেম্ব্রেনের সাথে একই রেখায় দুটি বৃহদাকার সার্ফেস ওয়াটার রিজার্ভয়ের (জলাধার) নির্মাণ করা হয়েছে, যেগুলির প্রত্যকেটির ক্ষমতা ৩ লক্ষ ঘন মিটার। জলাধারগুলিতে সর্বাধিকভাবে প্রাকৃতিক ভূখণ্ড থেকে বয়ে আসা বর্ষার জল সংরক্ষণ করা হয়.

বর্জ্যের পুনর্ব্যবহার

রত্নাগিরিতে উৎপন্ন হওয়া ৩০০০ ঘন মিটার জলীয় বর্জ্যের মধ্যে থেকে প্রায় ৫০% বর্জ্য, বয়লারে ফীড করা জলের গুনমান অনুসারে ট্রিট করা হয় এবং পুনরায় প্লান্টে ব্যবহার করা হয়।

অবশিষ্ট বর্জ্য, মহারাষ্ট্র দূষণ নিয়ন্ত্রক বোর্ডের নিয়মানুসারে, আমাদের প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত বর্জ্য ট্রিটমেন্ট প্লান্টে প্রাইমারী, সেকন্ডারী ও টার্শিয়ারী ফেসিলিটি উপযোগে সম্পূর্ণভাবে ট্রিট করা হয়। তারপর এই ট্রিট করা জল, প্লান্ট পরিসরে ১৫০ একরেরও বেশী জায়গায় বিস্তৃত গ্রীন করিডরে থাকা গাছে, জলসেচনের কাজে ব্যবহার করা হয়।

ফিনোলেক্স তার কারখানাগুলিতে, ‘শুন্য জলীয় বর্জ্য নিঃসরণের’ সিদ্ধান্ত পালন করে। ট্রিট না করে আমরা আমাদের প্লান্ট থেকে কোনপ্রকারের বর্জ্য বাইরে বেরোনর অনুমতি দিই না। প্লান্টে চব্বিশ ঘণ্টা এই ব্যাপারে সতর্কতা সহকারে নজর রাখা হয়।

গ্রীন বেল্ট

১৯৯০ সালের পূর্বে, প্লান্টের কাছাকাছি অবস্থিত একটি অনুর্বর জমি, আজ একটি সরস সবুজ এলাকায় রূপান্তরিত হয়েছে। ১৫০ একর জায়গায় বিস্তৃত এই জমিতে ৫০,০০০’এর চেয়েও বেশী বিভিন্ন প্রকারের বৃক্ষ রোপণ করা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে আম, কাজু, নারকেল প্রভৃতি গাছ।

কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ফিনোলেক্স নিজের প্লান্টে বিশ্ব মানের কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যকরী করার প্রতি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। সমস্ত বিষাক্ত বর্জ্যগুলির, অনুমোদিত বিপজ্জনক বর্জ্য নিষ্পত্তি ব্যবস্থার মাধ্যমে, তালোজা স্থিত মুম্বাই ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্টে নিস্পত্তি করা হয়। ইলেকট্রনিক বর্জ্যগুলির নিস্পত্তি করা হয়, মহারাষ্ট্র দূষণ নিয়ন্ত্রক বোর্ড অনুমোদিত, ইকো রিসাইক্লিং লিমিটেডের মাধ্যমে।

কম্পোস্ট করার মতো ক্যান্টিনের বর্জ্যগুলিকে এমন মেশিনের সাহায্যে প্রসেস করা হয়, যা বর্জিত খাদ্যকে জৈবিক সারে পরিণত করতে সক্ষম।

আমাদের নীতি অনুসারে, আমরা প্লাস্টিক বর্জ্যের উৎপাদন ন্যুনতম করে থাকি। সমস্ত প্লাস্টিকের বর্জ্য সম্পূর্ণভাবে আলাদা করা হয় ও রিসাইকেল করা হয়।

ধ্বনি দূষণ

আমাদের প্লান্টগুলি, সম্পর্কিত রাজ্য কর্তৃপক্ষ দ্বারা নির্দিষ্ট করা ধ্বনির স্তর বজায় রাখা সুনিশ্চিত করে। প্লান্টের মধ্যে বিভিন্ন স্থানে ধ্বনির মাত্রা মনিটর করা হয়। ধ্বনির উচ্চ মাত্রা যুক্ত এলাকায়, যেমন কম্প্রেশার ও ব্লোয়ার হাউজে, HSE নিয়মানুসারে কানের সুরক্ষার জন্য মাফ্‌ বা প্লাগ পরিধান করা একটি বাধ্যতামূলক আবশ্যকতা।

শক্তি সঞ্চয় ও অন্যান্য উদ্যোগগুলি

কাঁচামাল ও রসায়নের উপযোগ অত্যন্ত সতর্কতা সহকারে নিরীক্ষণ করা হয়, যাতে ক্ষতির পরিমাণ ন্যুনতম রাখা যায়।

আমরা আমাদের লাইটগুলিকে পাওয়ার সঞ্চয়কারী এল.ই.ডি. বাল্ব দিয়ে প্রতিস্থাপিত করা, ও তার সাথে রিনিউয়াল এনার্জি উৎপাদনের জন্য সোলার প্যানেল ইন্সটল করার সম্ভাবনা অনুসন্ধান উপলক্ষে একটি অভিযান শুরু করেছি।

স্বাস্থ্যবিধি

কর্মচারীদের স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কামনা হল ফিনোলেক্সের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এই যাত্রা আরম্ভ হয় সমস্ত নবীন কর্মচারীদের প্রাক্‌-নিয়োজন মেডিকেল পরীক্ষার মাধ্যমে, যাতে সম্মিলিত রয়েছে সাধারণ পরীক্ষণ, হিমোগ্রাম, লিভার ফাংশান পরীক্ষা, রক্তে শর্করার স্তর পরীক্ষা ইত্যাদি।

সধারণত আমরা কর্মচারীদের কল্যাণ ব্যবস্থাপনার জন্য একটি বার্ষিক ক্যালেন্ডার অনুসরণ করে থাকি। কর্মচারীদের প্রোফাইলের ওপর ভিত্তি করে, ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া সহ, অত্যাধুনিক রোগ সনাক্তকরণ পরীক্ষাগুলি করানো হয়। আমাদের অক্যুপেশনাল হেলথ্‌ সেন্টারে কল্যাণকারী তথ্যাদি ট্র্যাক করা হয়। রত্নাগিরি সেন্টারে রয়েছে একটি অ্যাম্বুলেন্স, ৬টি বেড ও প্রশিক্ষিত পুরুষ নার্স দ্বারা চব্বিশ ঘণ্টা পরিষেবার ব্যাবস্থা। তাছাড়া সারাক্ষণ ডাক্তারও উপলব্ধ থাকেন,

অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা

জরুরী অবস্থার প্রস্তুতি হিসেবে, নিয়মিত মক ড্রিল ও ফায়ার ড্রিল সম্পন্ন করা হয়। ফিনোলেক্স ফায়ার ও সেফ্‌টি বিভাগ, অত্যাধুনিক অগ্নি নির্বাপক সরঞ্জাম এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম দ্বারা সুসজ্জিত। সহজে যোগাযোগের জন্য বিভিন্ন এলাকায় ম্যানুয়েল কল পয়েন্ট (MCP) রয়েছে। তিনটি সম্পূর্ণ সজ্জিত ফায়ার টেন্ডার, যে কোন পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে সবসময় প্রস্তুত। আমাদের সমগ্র পরিসরে প্রেশারাইজ্‌ড ফায়ার ওয়াটার নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে রয়েছে। প্রয়োজনে স্থাপন করার জন্য উপযুক্ত ফায়ার ওয়াটার পাম্পেরে ব্যবস্থা রয়েছে, যেগুলি হেডার প্রেশার ড্রপ-এর ভিত্তিতে ধারাবাহিকভাবে কাজ করা শুরু করে। এখানে নিয়মিত অন সাইট এমারজেন্সি ম্যানেজমেন্ট প্ল্যান অনুশীলন করা হয়।

রোজগার

আমরা সর্বব্যাপী বিকাশে বিশ্বাস করি, এবং ফিনোলেক্সের কাছে এর অর্থ হল পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে বসবাসকারী সমুদায়ের বিকাশ ও সমৃদ্ধি। আমাদের রত্নাগিরিতে অবস্থিত কারখানায় ৬০০ থেকে বেশী কর্মচারীদের মধ্যে, ৭০% কর্মচারী স্থানীয় এলাকাগুলি, যেমন রত্নাগিরি জেলা ও কোঙ্কণ এলাকা থেকে এসেছে।

আমাদের নানান ইতিবাচক কার্যকলাপের পরিণাম স্বরূপ, প্রচুর মাত্রায় অপ্রত্যক্ষ রোজগার সৃজন হয়েছে, যার ফলে পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলির সাধারণ সমৃদ্ধি বৃদ্ধি পেয়েছে।

স্কিল ডেভেলপমেন্ট

দেশের দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ পিভিসি নির্মাণকারী কারখানাকে সুরক্ষিতভাবে ও দক্ষতা সহকারে পরিচালনা করার জন্য এক উপযুক্ত এবং কর্মক্ষম ওয়ার্কফোর্স-এর প্রয়োজন। যে কারণে ফিনোলেক্সের কাছে তার মানবশক্তিকে শিক্ষিত ও সুদক্ষ করে তোলা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এটি সুনিশ্চিত করতে, আমরা মুখ্য প্রযুক্তিগত যোগ্যতার ফাঁকগুলি খুঁজে বের করি ও সেগুলিকে আভ্যন্তরীণ / বাহ্যিক ট্রেনিং প্রোগ্রামের মাধ্যেমে, সঠিক ট্রেনিং ইনপুট প্রদান করে পূরণ করি।

সি.এস.আর.

আমাদের সি.এস.আর. ক্রিয়াকলাপগুলি শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক উন্নয়ন ও জল সরবরাহের উপরে কেন্দ্রিত। ফিনোলেক্স, রত্নাগিরিতে তার প্লান্ট পরিসরের কাছাকাছি একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ও একটি ইংরাজি মাধ্যেমের স্কুল সঞ্চালন করে। এছাড়াও আমরা নিকটবর্তী স্কুলগুলিকে আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে সাহায্য করে থাকি।

আমাদের প্লান্টের ভিতরে ও চতুঃপার্শ্বে মৌলিক স্বাস্থ্য সচেতনতা প্রচার করার উদ্দেশ্যে, আমরা স্বাস্থ্য শিবিরের আয়োজন করি, ম্যামোগ্রাফি সেন্টার চালাই, ও সেরিব্রাল পক্ষাঘাতের জন্য ফিজিওথেরাপি পরিচালনা করার মতো বহু পদক্ষেপ নিয়ে থাকি। পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলির কথা মাথায় রেখে আমরা নানাপ্রকার সামাজিক উন্নয়ন প্রকল্প আরম্ভ করেছি, যেমন মহিলাদের জন্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট, মন্দির নির্মাণের জন্য অনুদান প্রভৃতি। আমরা ‘রাষ্ট্রীয় পেয় জল যোজনা’তে অংশদান করি এবং আমাদের নিকটবর্তী এলাকায় পরিষ্কার খাবার জলের ব্যবস্থা করি।

অনুশাসন

আমাদের কর্পোরেট অনুশাসন, আমাদের সংস্কৃতি, নীতি এবং স্টেকহোল্ডারদের সাথে আমাদের সম্পর্ককে পরিবেষ্টিত করে থাকা নৈতিক মূল্যবোধকে তুলে ধরে। সততা এবং স্বচ্ছতা হল আমাদের কর্পোরেট অনুশাসন পালন করার মূল বিষয়, যাতেকরে আমরা আমাদের স্টেকহোল্ডারদের বিশ্বাসভাজন হতে পারি এবং সেই বিশ্বাস বজায় রাখতে পারি।

আমাদের কর্পোরেট গভর্নেন্স ফ্রেমওয়ার্কটি, আমাদের আর্থিক এবং কার্যসম্পাদন সংক্রান্ত সঠিক তথ্যগুলি সময়মত প্রকাশিত ও শেয়ার করা সুনিশ্চিত করে। এছাড়াও এটি ফিনোলেক্সের লিডারশীপ ও অনুশাসন সংক্রান্ত তথ্যাদিও প্রকাশিত করে। আমরা বিশ্বাস করি যে, কর্পোরেট গভর্নেন্সের সর্বোচ্চ মানদণ্ড সুনিশ্চিত করতে হলে, একটি সক্রিয়, সুসংগঠিত এবং স্বাধীন বোর্ড বা সমিতির প্রয়োজন হয়। ফিনোলেক্স কম্পানিতে, বোর্ড অফ ডাইরেক্টরেরা সর্বোত্তম উপায়ে কর্পোরেট গভর্নেন্স পরিচালনা করেন। এখানে বোর্ডের কাজ হল ম্যানেজমেন্টের কার্যক্রমগুলির তত্ত্বাবধান করা এবং স্টেকহোল্ডারদের দীর্ঘমেয়াদী স্বার্থ রক্ষা করা।

ইনকয়েরি ফরম

কোন বাণিজ্য অনুসন্ধান কল জন্য

18002003466

ইনকয়েরি ফরম

নীচের বিবরণ পূরণ করুন এবং আমাদের নির্বাহী এক শীঘ্রই আপনার কাছে ফিরে পাবেন।